যতনে রাখিব যন্ত্র ( কম্পিউটার সম্পর্কে ধারাবাহিক প্রকাশনা-৬ষ্ঠ পর্ব) - জীবন গড়ি প্রযুক্তির সুরে ♫

Infotech Ad Top new

Infotech ad post page Top

যতনে রাখিব যন্ত্র ( কম্পিউটার সম্পর্কে ধারাবাহিক প্রকাশনা-৬ষ্ঠ পর্ব)

যতনে রাখিব যন্ত্র ( কম্পিউটার সম্পর্কে ধারাবাহিক প্রকাশনা-৬ষ্ঠ পর্ব)

Share This
ইনফোটেকলাইফ.কম –এর পক্ষ থেকে সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে আজকে আবারো হাজির হলাম কম্পিউটার বিষয়ক ধারাবাহিক প্রকাশনা “যতনে রাখিব যন্ত্র” এর ৬ষ্ঠ পর্ব নিয়ে। আশা রাখছি ইনফোলাইফ.কমের সকল পাঠক, লেখক সহ সকলেই ভাল আছেন। সেই সাথে আপনার প্রিয় যন্ত্রটিও ভাল আছে। হ্যাঁ আপনার যন্ত্রটির আরও একটু বাড়তি যত্নের লক্ষ্যেই আমাদের এই ক্ষুদ্র প্রায়াস। তো আর কথা না বাড়িয়ে আজকের টিউনটি শুরু করা যাক। আজকে আমি আপনাদেকে বলব কিভাবে আমি আমার সদাসঙ্গি প্রিয় লাপটপটির যত্ন নেই। আমি অবশ্যই আপনাদের এই নিয়মগুলো অনুসরন করতে বলছি না। তবে একথা সত্য যে, আমি নিম্নোক্ত নিয়মগুলো অনুসরন করে ২০১১ সাল থেকে আমার প্রিয় ল্যাপটপটি ব্যবহার করে আসছি। এখনো পর্যন্ত কোন ধরনের সার্ভিসিং এর ধারে কাছেও যাইনি। তো শুরু করা যাক……

স্ক্রিন প্রটেক্টর :প্রথমে ‘স্ক্রিন প্রটেক্টর’ ও ‘কি-বোর্ড প্রটেক্টর’ এই দুটি জিনিস অবশ্যই কিনে নিন। ‘স্ক্রিন প্রটেক্টর’ হচ্ছে আমরা টাচ স্ক্রিন মোবাইল ফোনে যে স্ক্রিন প্রটেক্টর ব্যবহার করি, সেই একই জিনিস। এটি ব্যবহারে আপনার ল্যাপটপের স্ক্রিনে কোনো দাগ লাগবে না, যদি কোনো দাগ বা ছোটখাটো আঘাত লাগে সেটি লাগবে প্রটেক্টরের ওপর। আপনার মূল স্ক্রিন থাকবে দাগমুক্ত। এটির দাম পড়বে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা।


 কিবোর্ড প্রটেক্টর: ‘কি-বোর্ড প্রটেক্টর’ হচ্ছে স্বচ্ছ রবারের একটি পর্দার মতো। এটি ব্যবহারে আপনার ল্যাপটপের কি-বোর্ড থাকবে নিরাপদ ও ধুলোমুক্ত। প্রায়ই আমাদের ল্যাপটপের কি-বোর্ড ধূলায় আক্রান্ত হয় এবং পরিষ্কার করতে সমস্যা হয়। আর এটি ব্যবহারের আরেকটি সুবিধা আছে। ধরুন আপনি ল্যাপটপে কাজ করছেন এবং চা-কফি খাচ্ছেন। বেখায়ালি হবার কারণে গ্লাসটি বা কাপটি উল্টে পড়লো আপনার ল্যাপটপের কি-বোর্ডের ওপর। ব্যাস, হলো তো ঝামেলা! ‘কি-বোর্ড প্রটেক্টর’ ব্যবহার করলে এই সমস্যাটি হবে না। কারণ এটি ব্যবহার করলে কি-বোর্ডে জল, চা, কফি কিছুই ঢুকতে পারবে না।



কুলিং ফ্যান: ল্যাপটপে অনেক ছোট পরিসরে কম্পিউটারের প্রয়োজনীয় মাদারবোবোর্ড, প্রসেসর, র্যাম, হার্ডডিস্ক এবং অন্যান্য সবকিছুই থাকে। সে কারণে কাজ করতে করতে ল্যাপটপ কিছুটা গরম হবে এটাই স্বাভাবিক। এটির সমাধান হচ্ছে কুলিং ফ্যান। কুলিং ফ্যানের ওপর ল্যাপটপ রেখে ব্যবহার করলে ল্যাপটপ গরমও কম হবে এবং ল্যাপটপের ব্যাটারি লাইফও বাড়বে।

ভেন্টিলেটর পরিষ্কার: ল্যাপটপের ব্যাকসাইডে এবং পাশে বাতাস চলাচলের জন্য যে ভেন্টিলেটরগুলো থাকে, সেগুলো সবসময় পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করুন। এতে করে আপনার ল্যাপটপের ভেতরের কুলিং ফ্যান ধূলামুক্ত থাকবে এবং সঠিকভাবে কাজ করতে পারবে।


বিছানা বা বালিশের উপরে ব্যবহার করবেন না: বিছানা বা বালিশের ওপর রেখে কখনো ল্যাপটপ ব্যবহার করবেন না। এটি করলে ল্যাপটপের চেম্বারে খুব দ্রুত গরম বাতাস তৈরি হয় এবং তা ভেন্টিলেটর দিয়ে বের হতে পারে না। প্রতিনিয়ত এমনটি ঘটতে থাকলে যেকোনো দিন আপনার ল্যাপটপ কোমায় চলে যেতে পারে। তবে ভালো মানের কুলিং ফ্যান ব্যবহার করলে আপনি বিছানায় বসেও ল্যাপটপ ব্যবহার করতে পারবেন।

বিদ্যুৎ সংযোগে সতর্কতা অবলম্বন: ল্যাপটপে বিদ্যুতের সংযোগ দেবার সময় সতর্কতা অবলম্বন করুন। বৈদ্যুতিক বোর্ডের সুইচ অন থাকা অবস্থায় ল্যাপটপের প্লাগ ঢোকাবেন না এবং হঠাৎ করে অ্যাডাপ্টারের তারটি খুলেও ফেলবেন না। এতে করে ল্যাপটপের পাওয়ার কানেক্টর ক্ষতিগ্রস্ত হবার সম্ভাবনা থাকে।


চার্জ নিঃশেষ করুন: সব সময় বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে ল্যাপটপ ব্যবহার করবেন না। সপ্তাহে অন্তত দু’বার আপনার ল্যাপটপের ব্যাটারির চার্জ শেষ করুন। হঠাৎ বিদ্যুৎ বিভ্রাটে অথবা বাইরে ব্যবহার করলে ল্যাপটপের চার্জ হয়তো ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ শেষ হয়। কিন্তু চার্জ নিঃশেষ না হলে ব্যাটারির সবগুলো ‘সেল’ ব্যবহার হয় না। সবগুলো ‘সেল’ ব্যবহার না হলে ব্যাটারি তার সম্পূর্ণ কার্যক্ষমতা প্রদর্শন করতে পারে না।

একটু বাড়তি সতর্কতা বা যত্নই বাড়িয়ে দিতে পারে আপনার প্রিয় ল্যাপটপটির আয়ু। নিশ্চিন্তে ব্যাবহার করতে পারেন বছরের পর বছর। আজ এ পর্যন্তই। আবারো কোন একদিন হাজির হবো আপনাদের প্রিয় প্রকাশনা “যতনে রাখিব যন্ত্র” নিয়ে। যাওয়ার আগে একটি কথা যারা “যতনে রাখিব যন্ত্র” প্রকাশনার পূর্বে প্রকাশিত পর্ব গুলো এখনো দেখেননি তারা নিচের লিংকে ক্লিক করে এখনই দেখে আসুন। যতনে রাখিব যন্ত্র
 






1 comment:

Goljar- The Patroblogger said...

আপনার ষষ্ঠ পর্বটি যথেষ্ট তথ্য বহুল। যারা নতুন ল্যাপটপ কিনেছেন তাদের খুবই কাজে লাগবে। ধন্যবাদ এভাবে ইনফোটেকলাইফ কে সম্মানিত করবার জন্য।

Post a Comment

Infotech Post Bottom Ad New

Pages